দোলের স্মৃতি

DSC02979mew

বসন্ত কাল, দোল পূর্ণিমার মায়াবী  রাত  , মেঘহীন আকাশে  পূর্ণচন্দ্র ।অতি বড় বেরসিক মানুষও  অমন  রূপোলী চাঁদের  দিকে তাকিয়ে  আনমনা হয় না একথা বলা বোধহয় ঠিক হবে না।  স্মৃতির পাতা উলটোই।  আপনমনে স্মৃতি রোমন্থনের  একটা মজা আছে , কোন sequence এর বালাই নেই । আমার ইচ্ছে  মত এঘর ওঘর ঘুরে বেড়ানো। ছোটবেলার রঙ খেলা।  শুধু আবির নিয়ে খেলার কোন মজাই  নেই। পিচকিরি  দিয়ে  রঙের ফোয়ারা যতক্ষণ না বন্ধুদের গায়ে লাগানো যাচ্ছে, কি খেললাম! ভিজে চুপচুপে  হয়ে ভুতের মত ঘোরাঘুরি আর হুল্লোড়। আবার এই রঙ খেলাই বড় হতে হতে  কখন যে শুধুই আবিরে পরিবর্তিত হল মনে পড়ে না। তবে সেও অন্যরকমের আনন্দ। ছোট বড় র বিরাট দল। পাড়াতুত দিদি মাসি পিসি কাকি জেঠিদের দল।হাতে আবিরের থালা। সেকি আনন্দ! এ বাড়ি ও বাড়ি ঘুরে ঘুরে সবাইকে রঙে রঙ্গিন করে তোলার প্রয়াস। এ দিন টি যেন সব নিয়ম ভাঙ্গার দিন।কত যে দুষ্টু বুদ্ধি দিয়ে বোকা বানিয়ে  রঙ লাগানো ! মনে পড়ে কতজন যে বলতেন, এই রে তোমরা এসেছ! এমা আমি ত স্নান করে ফেলেছি!   আমরা  নাছোড়বান্দা  বলতাম, আমরা এই একটু গালে লাগাব সত্যি বলছি।  তারপর  কখন যে আবিরের রঙ সীমানা ছাড়াত! আবার সেই কাকিমারাই জোর করে বসিয়ে মিষ্টি খাওয়াতেন !সন্ধেবেলা এই বিশাল দলের আবার জমায়েত গানের আসরে এক দিদির বাড়িতে। সেখানেও খাওয়াদাওয়া আর একের পর এক  বসন্তের গান আর হোলির গান। সেই আসরে  ছোট বড় সবাই কিছু না কিছু  শোনাচ্ছে ।  সেই সুখস্মৃতি এখন ও প্রতি দোল পূর্ণিমায় ফিরে ফিরে আসে । স্মৃতি সততই সুখের।

20140428_072645

কৃষ্ণচূড়ার পাতার ফাঁকে পূর্ণিমার চাঁদ আবার ও লুকোচুরি খেলছে। ফাগুনি পূর্ণিমা রাতে চল পলায়ে যাই !রাস্তার দুই ধারে  লাল হলুদের বন্যা।  প্রখর রৌদ্র কে পরাস্ত করে ঊর্ধ্বাকাশে ছড়িয়ে পড়ছে আবির।অফুরান প্রাণশক্তির যেন দাপুটে নির্ঘোষ ।আমার শৈশবের আগরতলা। রাজন্য  স্মৃতি বিজড়িত আগরতলা। উত্তর গেট থেকে রাজভবনের রাস্তা। মহারাজের আমলে রাস্তার দুধারে রোপিত কৃষ্ণচূড়া,রাধাচূড়া, অমলতাস,শিরীষ, আরও নানা বৃৃক্ষ। শুধু মাত্র এই রাস্তাটাই নয়,আখাউরা রাস্তার দুই ধার, মহারাজা  বীর বিক্রম কলেজ  চত্বরের  চারপাশ  সেও কতো দৃষ্টি নন্দন।সমস্ত শহর জুড়েই তো বিশাল বিশাল মহিরূহ ! সুদুর ম্যাডাগাস্কার থেকে এই কৃষ্ণচূড়া গাছ এসেছে ।শুধুমাত্র আসা নয় ,দ্রুত সে ছড়িয়ে পড়েছে  পৃথিবীর না না দেশে। সৌন্দর্যের জন্য প্রিয় হয়ে উঠেছে সব খানেই।এখন যদিও রীতিমত অনুপ্রবেশকারীর তকমা জুটে গেছে (invasive species) ।আগ্রাসন প্রিয়, অন্যান্য প্রজাতির গাছ কে সে বাড়তে দেয় না এ হেন অভিযোগের  আঙ্গুল এর দিকে অনেক আগেই উঠেছে ।সেই আগ্রাসন  কবিকেও আষ্টেপৃষ্ঠে ঘায়েল করেছে এমন ভাবে  যে গানেও   বার বার ফিরে  ফিরে এসেছে । কখন গুল মোহর বেশে  কখন কৃষ্ণচূড়ার  রাজসিক সাজে !  কখন বা “তোমার কাছে  ফাগুন চেয়েছে কৃষ্ণচূড়া” কখন বা “গুলমোহরের ফুল ঝরে যায়” ,সুরের রেশ নিয়ে আপনার হয়ে উঠেছে এই  বৃক্ষ ।এত প্রাণ প্রাচুর্য  ,এত বিস্তার আর কোন  ফুল গাছের কথা ত মনে পড়ছে না।রুদ্রপলাশ  বা পলাশ এই দুইএর কোনটাই কৃষ্ণচূড়ার জনপ্রিয়তার কাছাকাছি নেই। যদিও বা বসন্তের  সঙ্গে এরা সমার্থক হয়ে উঠেছে । দোলের দিনে ,রঙ খেলার দিনে এরাও যেন আমাদের  সঙ্গে  পাল্লা দিয়ে প্রকৃতিকে সাজিয়ে তুলত। রঙ খেলতে খেলতে একটু জিরিয়ে নেওয়া  লাল পাপড়ি বিছানো এ রকমি কোন কৃষ্ণচূড়া ছায়ায় ।আমার শৈশব  আর কৈশোরের স্মৃতি  জড়ানো কৃষ্ণচূড়া আবার যেন নতুন করে  ফিরে এল এই দোল  পূর্ণিমায় ।

Advertisements

6 Comments Add yours

  1. .. another example of your master strokes and this time around the picture is filled with colors. Red, green, yellow and off-course those memories in sepia. loved every bit of this post.
    Keep going …

    Liked by 1 person

  2. jayatisblog says:

    Thanks again Suman এত সুন্দর করে encourage করিস যে আবার লেখার উৎসাহ পাই 🙂 🙂 ।

    Like

  3. Krishna chakrabarti says:

    Khub sundor Jayati… Amader shaishab Abar fire elo Tor lekhay.. Abirer rong e rangano shaishab.. Barnana shatej, sundor o jhorjhore.. Aro lekhar pratyashay roilam…

    Liked by 1 person

  4. jayatisblog says:

    Thank you Krishna 🙂 তোর ভাল লেগেছে জেনে ভীষণই আনন্দ পেলাম, হ্যাঁ আমাদের আগরতলা চিরকালই আমাদের স্মৃতিতে চির নবীন ।আর এই স্মৃতির সম ভাগীদার তুই ও । তাই আমার ও ভাল লাগছে তোদের সঙ্গে সেই স্মৃতি ভাগ করে নিতে পেরে ।

    Like

  5. Susmita Laskar. says:

    Bheeshon sundor Jayati – protiti shobdo jeno amader shoishob er protiti muhurto phiriye dilo. Shishu Bihar e jabar raasta ta o chokher samne bheshe uthlo. Ebhabei likhe ja ar charidik rong e bhoriye de.

    Liked by 1 person

  6. jayatisblog says:

    Thank you Susmita 🙂 এত সুন্দর করে বললি! … তোর ভাল লেগেছে এতেই আমি খুশি ।

    Like

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s