অ্যামিগুরুমি

বন্ধুর মেয়ের জন্মদিন। কি কিনি কি কিনি করে যথারীতি ছোটখাটো মিটিং করে ফেললাম।গল্পের বই , গেমস, DIY crafts , খেলনাপাতি, ছবি আঁকার সরঞ্জাম, জামা কাপড়…না …কিছুই আর স্থির করা গেলনা । অতঃপর ঠিক করলাম শপিং মল এ যাওয়া যাক।হিল্লে কিছু একটা হবে । বাচ্চা মানুষ, ভাবলাম খেলনাপাতি দিয়েই শুরু করি ।নিজেদের ছোটবেলাটাই বার বার মনে পরে যায় । জন্মদিনের উপহার মানেই গল্পের বই আর চকলেটের বাক্স ! আত্মীয়স্বজনের দেওয়া জামাকাপড় একদম ই ভাল লাগতনা। খেলনা পেলে তো হাতে স্বর্গ পাওয়া । তো সেই কথা মাথায় রেখে হাত বাড়ালাম পুতুলের দিকে। আহা কি অপূর্ব সব পুতুল! আবার ছ্যাঁক করে মনে হলে…এই রে আমি আবার gender stereotype এই আবর্তে পড়লাম নাতো ! মেয়ে দের হাতে কি পুতুল দেয়া চলবে না?…না আমার বন্ধুটি কে এখন পর্যন্ত এইসব নিয়ে কথা বলতে শুনিনি কিন্তু কিছুই তো বলা যায়না ! আচ্ছা আমি কি তাহলে খেলনা গাড়ি কিনব?…নাহ সমস্যা বেড়েই যাচ্ছে।ধুর গাড়ি নিয়ে করবেটা কি।আবার ১৮০ ডিগ্রি ঘুরলাম।

বার্বি সুন্দরী , teddy bear আর স্বর্ণকেশী তুলতুলে পুতুল দের দেখে আমার হাত নিশপিশ ।মনে হল সব কটা কে নিয়ে যাই।এত খেলনা চারপাশে কিন্তু পুতুলের আকর্ষনটাই আলাদা।যেমন চুলের বাহার তেমনি জামার ডিজাইন । Stuffed toys এর ই ত কত প্রকার ভেদ। বাঘ ভাল্লুক বেড়াল কুকুর যেমন আছে তেমনি নানা কার্টুন চরিত্র । এগুলি বানাতে যে খুব একটা মুনশিয়ানার প্রয়োজন তা কিন্তু নয় ।

আমার মনে পড়ল কদিন আগে craft সংক্রান্ত কিছু website দেখতে গিয়ে Amigurumi toys এর কথা জানলাম।অ্যামিগুরুমি একটা জাপানি শব্দ ,” Ami “মানে বোনা বা ক্রশে , আর “nuigurumi”মানেে stuffed dolls । ইদানিং জাপানি অ্যামিগুরুমি খেলনা (Amigurumi toys) বিশ্ব বাজারে খুব জনপ্রিয় হয়েছে।ক্রশের কাজে যাদের মোটামুটি জ্ঞান আছে তাদের কাছে অ্যামিগুরুমি পুতুল বানানো কোন ব্যাপার ই না । single crochet দিয়ে cylindrical , গোলাকার, নানা রকম আকৃতি তৈরি করে তার ভিতরে ফোম পুরে দিয়ে সেলাই করে বানানো হয় পুতুলের অবয়ব।হাত ,পা ,দেহ সব এক এক করে সেলাই করে জোড়া হয়। একটা প্রধান বৈশিষ্ট্য হল এই পুতুলের মাথা গুলি অনুপাতে বেশ বড় করা হয় ,আর খুব ই মিষ্টি দেখতে। উল দিয়ে চুল, জামা সবই করা হয়।

আমাদের দেশে পুতুলের বৈচিত্র্য তো কম নয় কিন্তু এই জাপানি শিল্প কে যদি এক্ টু আয়ত্ব করা যায়,মনে হয় বাজার চলতি খেলনা পুতুলের দিকে কেউ ফিরেও তাকাবে না।অসংখ্য website এ অ্যামিগুরুমি পুতুল বানানোর পদ্ধতি দেওয়া আছে তবে ক্রশের উপর সাধারন জ্ঞান থাকা সর্বপ্রথম প্রয়োজন। কি ! একটু একটু আগ্রহ হচ্ছে তো ? । হ্যাঁ, আমিও হামলে পড়ে বেশ কিছুদিন অ্যামিগুরুমি কে বোঝার চেষ্টা চালালাম।

অ্যামিগুরুমি এই সেদিন মানে ২০০২ -৩ নাগাদ জাপান ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিক হয়ে ওঠে। তারপর আর থামা নয়, জনপ্রিয়তা দিন কে দিন বেড়েই চলেছে।আর হ্যাঁ, তাই বিক্রি বাট্টা বেশ ভালই হচ্ছে । না…আমি এইখানের মল এ তেনাদের সাক্ষাত পেলাম না!বুঝতে পারছি, আমাকে আরও অনেক চক্কর কাটতে হবে উপহার বাছাই করতে। ততখন বরং আমার বানানো একজন অ্যামিগুরুমি র সঙ্গে আপনাদের পরিচয় করিয়ে দি যদি ও আমার অ্যামিগুরুমি পুতুল তার জাপানীত্ব অনেকাংশে খুইয়ে বাঙ্গালীত্ব প্রাপ্ত হয়েছে !

20150910_120211

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s